অনলাইন ইনকাম এবং ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার নিয়ে বিস্তারিত তথ্য দেখুন।

অনলাইন ইনকাম এবং ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার নিয়ে বিস্তারিত তথ্য দেখুন।

বর্তমান অনলাইন ইনকাম নিয়ে অনেকেই বেশ আগ্রহ প্রকাশ করেন, সকলেই চান ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে জানতে এবং ফ্রিল্যান্সিং করতে চাচ্ছেন হতে চান একটা ভালো মানের ফ্রিল্যান্সার। প্রযুক্তির উন্নয়ন এর কারণে বর্তমান সময়ে আমরা অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং এর নাম তো শুনে থাকী কিন্তু কীভাবে ফ্রিল্যান্সিং করবেন বা কোথায় ফ্রিল্যান্সিং করতে হয় এই সকল বিষয়ে সঠিক তথ্য আপনাদের অনেকের কাছেই থাকে না।

অনলাইন ইনকাম এবং ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার নিয়ে বিস্তারিত তথ্য দেখুন।
অনলাইন ইনকাম এবং ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার নিয়ে বিস্তারিত তথ্য দেখুন।


আবার এখন যদি অনুসন্ধান করা হয় যে ফ্রিল্যান্সিং কী এই বিষয়ে খুব ভালো কেউ জানে কী, তাহলে রেজাল্ট কিন্তু আসবে অর্ধেক এর বেশী মানুষ শুধু ফ্রিল্যান্সিং নামটাই শুনেছে এবং ফ্রিল্যান্সিং নাম শুনেই ফ্রিল্যান্সার হতে ইচ্ছুক তাদের কাছে ফ্রিল্যান্সিং কী এর বিস্তারিত কোনো সঠিক তথ্য নাই যার কারণে এমন অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং এ যুক্ত হতে পারছেন না।

যদি কোনো বিষয় আপনাকে শুরু করতে হয় তাহলে আপনাকে সবার আগে ওই বিষয়ে সকল তথ্য সঠিক ভাবে জেনে নিতে হবে এবং আপনার মস্তিষ্কে ওই বিষয়টা সুন্দর করে ইন্ডেক্স করে নিতে হবে যা আপনি জানেন। আপনি যখন একটা বিষয় না জেনে শুরু করবেন তখন তার শুরু এবং শেষ সাথে সফলতা কিছুই অর্জন করতে সক্ষম হবেন না অতএব আপনাকে আগে জানতে হবে যে এই ফ্রিল্যান্সিং আসলে কী।

খুবই স্বচ্ছ ভাবে যদি বলা যাই তাহলে সেটা হলো ইন্টারনেট এর মাধ্যম ব্যবহার করে আপনার যেকোনো কাজকেই ফ্রিল্যান্সিং বলা যেতে পারে বা বলা হয়। আপনি অবশ্যই দেখে থাকবেন বিভিন্ন কম্পিউটার এর কার্যক্রম যেখানে হয়ে থাকে অনেকেই কিন্তু গ্রাফিক্স এর কাজ জানে, আবার আপনি একটু খেয়াল করলে দেখবেন সকল প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার সেক্টরে যারা কাজ করেন তারা এম, এস অফিস এর কাজ জানে। তারা একটা নির্দিষ্ট জায়গায় নির্দিষ্ট সময় ধরে একই প্রতিষ্ঠানে একই মালিক এর কাছে কাজ করে থাকে দীর্ঘ সময় ধরে।

এই একই কাজ গুলো অনলাইন মার্কেটপ্লেস এর মাধ্যম ব্যবহার করে অনেকেই করিয়ে নিতে চায় কাজ গুলো কিছু অল্প সময় দ্বারা, আর এই কাজ গুলোকে ফ্রিল্যান্সিং বলা হয়ে থাকে আর যারা এই সকল কাজ করে দেয় তাদের সকলকেই ফ্রিল্যান্সার বলে।

আপনারা অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং এবং আউটসোর্সিং এর পার্থক্য অনুসন্ধান করতে সক্ষম হয়ে উঠতে পারেন না, আসলে এই বিষয়টা অনেক সহজ একটা জিনিস মনে করুন আপনি একজন ওয়েব ডেভেলপার এবং আপনার একজন ক্রেতা রয়েছে যে আপনাকে কিছু কাজের অর্ডার করে। ধরে নিন আপনার ক্রেতা আপনাকে বললো একটা ওয়েবসাইট বানিয়ে দিতে এবং আপনি তাকে একটা তার ইচ্ছা মতো ওয়েবসাইট বানিয়ে দিলেন এবং তার জন্য আপনার ক্রেতা আপনাকে পেমেন্ট করলো। অর্থাৎ আপনি কাজটি করে দিলেন মানে আপনি ফ্রিল্যান্সার আপনি ফ্রিল্যান্সিং করলেন এবং আপনার কাছে থেকে যিনি কাজটা করিয়ে নিলো তিনি আউটসোর্সিং করলেন তার মানে হলো সে বাইরে থেকে কাজটি করিয়ে নিলো।

ফ্রিল্যান্সার হওয়ার জন্য অনেকেই ভাবেন আপনার যথেষ্ট যোগ্যতা নাই বা আপনি খুব বেশী পড়ালেখা জানেন না, কিন্তু এই ফ্রিল্যান্সার হতে গেলে আপনার কোনো একাডেমিক সার্টিফিকেট এর মূল্যায়ন নাই। মূল্যায়ন আছে সেটা হলো শুধুমাত্র আপনার দক্ষতার। আপনার নিজের থেকে ভালো আর কেউ জানে না আপনি কোন বিষয়ে দক্ষ আপনি যে বিষয়ে কাজ করতে চান ওই বিষয়ে এক্সপার্ট তৈরি হয়ে যান এই যোগ্যতা থাকলেই যথেষ্ট।

নতুন যখন কেউ ফ্রিল্যান্সিং করতে চান তখন একজন এক্সপার্ট ফ্রিল্যান্সার এর কাছে অনেকেই জানতে চান কোন কাজটা সব থেকে সহজ। আসলে অন্য একজন ফ্রিল্যান্সার যে কাজ করে তার কাছে সে কাজই সহজ মনে হবে কারণ সে ওই বিষয় যথেষ্ট দক্ষতার অধিকারী। আপনিও নিজেকে দক্ষ করে তুলুন নিজের পছন্দনীয় কাজের উপর, তাহলে তখন আপনার কাজও সহজ লাগবে আর আপনি যদি অন্যকে কপি করে তার কাজগুলো করতে যান তাহলে সফল নাও হতে পারেন এতে করে আপনার সময় নষ্ট হবে।

বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সার যারা আছেন বেশীরভাগ অনেকেই যে কাজ গুলো করে থাকেন উল্লেখ করা হলোঃ


  • ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট
  • অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট
  • এসইও
  • আর্টিকেল রাইটিং
  • মার্কেটিং
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন

আরও অগণিত কাজ ফ্রিল্যান্সার মার্কেটপ্লেস গুলোতে রয়েছে আপনার পছন্দমতো সকল কাজ আপনি পাবেন শুধু দক্ষতা অর্জন এর প্রয়োজন আপনার।

আপনার পছন্দের কাজের উপর দক্ষতা অর্জন করার পর আপনাকে কাজে জয়েন করতে হবে আর ফ্রিল্যান্সাররা যেখানে কাজ করে ওটা অনলাইন মার্কেটপ্লেস নামে পরিচিত। বিভিন্ন বিদেশী ক্রেতারা তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী কাজ করার পোস্ট পাবলিশ করেন তখন ফ্রিল্যান্সাররা ওই কাজ গুলো করে দেন। অনেক ফ্রিল্যান্সার কাজ করে দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন এদের মধ্যে থেকে ক্লায়েন্ট যাকে ইচ্ছা তাকে নির্বাচন করতে পারে। সাধারণত পূর্ব কাজের অভিজ্ঞতা, টাকার পরিমাণ এবং বিড করার সময় ফ্রিল্যান্সারের মন্তব্য ফ্রিল্যান্সার নির্বাচন করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। ফ্রিল্যান্সার নির্বাচন করার পর ক্লায়েন্ট কাজের সম্পূর্ণ টাকা অনলাইন মার্কেটপ্লেস এ জমা করে দেয়। এর মাধ্যমে কাজ শেষ হবার পর সাথে সাথে টাকা পাবার আশা থাকে।জনপ্রিয় অনলাইন মার্কেটপ্লেস এর মধ্যে ফ্রিল্যান্সার ডট কম একটা খুবই জনপ্রিয় ওয়েবসাইট, বাংলাদেশী অনেক ফ্রিল্যান্সার এই মার্কেটপ্লেস এ দীর্ঘ সময় ধরে সফলতা অর্জন করেছে, মার্কেটপ্লেসটি বাংলাদেশেও তাদের কার্যক্রম প্রসারের অংশ হিসেবে ফ্রিল্যান্সার ডট কম ডট বিডি চালু করেছে। এই জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সার অনলাইন মার্কেটপ্লেস এ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ এর মাধ্যমে অনেক অর্থ অর্জন করা যাই।

আরও বিভিন্ন জনপ্রিয় মার্কেটপ্লেস রয়েছে আপনি সার্চ ইঞ্জিন এর সাহায্য নিতে পারেন, আশা করছি আজকের টিউটোরিয়াল এর মাধ্যমে অনলাইন ইনকাম অথবা ফ্রিল্যান্সিং এবং ফ্রিল্যান্সার সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দিতে সক্ষম হয়েছি যা আপনার ফ্রিল্যান্সিং করায় প্রচুর পরিমাণ সাহায্য করবে।
Newer Posts Older Posts

Related posts